Nirbhiknewsমিয়ানমারের সেনাবাহিনীর হামলা-হত্যা-ধর্ষণের মুখে রাখাইন রাজ্য থেকে পালিয়ে আসা সাত লাখের অধিক রোহিঙ্গার জনগোষ্ঠীর নিবন্ধন সম্পন্ন হয়েছে। কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের ১২টি অস্থায়ী আশ্রয়কেন্দ্রে সরকারি ব্যবস্থাপনায় সাতটি সেন্টারের মাধ্যমে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে এ নিবন্ধন হচ্ছে।

গতকাল বুধবার পর্যন্ত সাত লাখ দুই হাজার ১০৭ জন রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ ও শিশুর নিবন্ধন সম্পন্ন হয়েছে বলে জানিয়েছে এর দায়িত্বে থাকা বাংলাদেশ পাসপোর্ট অ্যান্ড ইমিগ্রেশন অধিদপ্তর।

পাসপোর্ট অ্যান্ড ইমিগ্রেশন অধিদপ্তরের উপপরিচালক আবু নোমান মোহাম্মদ জাকের হোসেন গণমাধ্যমকে জানান, গতকাল বুধবার কুতুপালং ১ নম্বর অস্থায়ী ক্যাম্পে ৪৪৫ পুরুষ ও ৮৪৯ নারী, কুতুপালং ২ নম্বর অস্থায়ী ক্যাম্পে ৯০০ পুরুষ ও ৮৮২ নারী, নোয়াপাড়ায় ৪৪০ পুরুষ ও ৫৫৮ নারী, থাইংখালী ১ নম্বর অস্থায়ী ক্যাম্পে এক হাজার ৩৬৯ জন পুরুষ ও এক হাজার ৮৬৮ নারী, থাইংখালী ২ নম্বর অস্থায়ী ক্যাম্পে ৯০৪ পুরুষ ও ৭৮৮ নারী, বালুখালী ক্যাম্পে এক হাজার ১০৩ জন পুরুষ ও এক হাজার ৬৫৩ নারী এবং শাপলাপুর ক্যাম্পে ৭১ পুরুষ ও ৯৪ নারীসহ মোট ১১ হাজার ৪৭৯ জন নিবন্ধন করেছেন।

সব মিলিয়ে এ পর্যন্ত সাত লাখ দুই হাজার ১০৭ জন রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ ও শিশুর বায়োমেট্টিক নিবন্ধন সম্পন্ন হয়েছে। এ সময় উপপরিচালক আরো বলেন, যত দিন পর্যন্ত মিয়ানমার থেকে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ অব্যাহত থাকবে, তত দিন বায়োমেট্রিক নিবন্ধন কার্যক্রম চালু থাকবে।

কক্সবাজারের শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনের (আরআরআরসি) মো. আবুল কালাম জানিয়েছেন, মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর নিপীড়নের মুখে ২৫ আগস্টের পর থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের সংখ্যা ছয় লাখ ৩৫ হাজার। এ ছাড়া আগে আসা আরো দুই লাখ চার হাজার ৬০ জন মিয়ানমার নাগরিক বাংলাদেশে অবস্থান করছেন।