nirbhiknewsদেশে সংবাদপত্র ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় পূর্ণ স্বাধীনতা রয়েছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, এ স্বাধীনতা ভোগ করতে হলে দায়িত্ববোধ নিয়েই করতে হবে। গতকাল দশম জাতীয় সংসদের পঞ্চদশ অধিবেশনের সমাপনী ভাষণে এসব কথা বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এ দেশে সংবাদপত্র ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় স্বাধীনতা রয়েছে, বাকস্বাধীনতা ও ব্যক্তিস্বাধীনতা রয়েছে। তবে স্বাধীনতা ভোগ করতে হলে দায়িত্বশীল হতে হবে। একজনের যেটা অধিকার, আরেকজনের জন্য সেটা দায়িত্ব। স্বাধীনতা কেউ ভোগ করতে হলে দায়িত্ববোধ নিয়েই করতে হবে। এটাই বাস্তবতা।’
অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনের সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘দেশে এখন ৩৪টি টেলিভিশন, ৭৫০টি দৈনিক পত্রিকা রয়েছে। অথচ অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল বলেছে, এ দেশে নাকি মানুষের বাকস্বাধীনতা নেই। বেসরকারি টেলিভিশনগুলোয় বসে টকশোতে দিন-রাত সরকারের বিরুদ্ধে সমানে কথা বলা হচ্ছে। টকশো, আলোচনায় যে এত কথা বলা হচ্ছে, কেউ কি তাদের বাধা দিচ্ছে।

তিনি বলেন, কেউ যদি হলুদ সাংবাদিকতা করে, অসত্য তথ্য দেয়, কারো যদি চরিত্র হরণ করা হয়, নিশ্চয়ই সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরও অধিকার রয়েছে, সে মিথ্যাচার থেকে নিজেকে রক্ষা করার। সংসদ সদস্য থেকে যেকোনো সাধারণ মানুষ তার ব্যাপারে অসত্য তথ্য ছাপা হলে তিনি সম্মানহানির মামলা করতে পারেন। তবে কেউ যদি মনে করে যে, সে অপরাধী না, তাহলে সে প্রমাণ করবে যে, সে অপরাধী না। কিন্তু এখানে কেউ যদি বলে সংবাদপত্রের স্বাধীনতা নেই, তা ঠিক নয়।

বিচার বিভাগের স্বাধীনতা প্রশ্নে প্রধান বিচারপতির সাম্প্রতিক এক বক্তব্য প্রসঙ্গে সরকারপ্রধান বলেন, ‘আমি জানি না, তিনি কীভাবে এটা বললেন যে, এদেশে আইনের শাসন নেই, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা নেই। বিচার বিভাগের স্বাধীনতা আছে বলেই তো একজন নেত্রীর মামলায় ১৪০ দিন সময় দিয়েছেন আদালত। আমাদের যদি এ ধরনের মানসিকতা থাকত, তাহলে এটা দিতে পারত না। একই মামলায় যদি ৪০ বা ৫০ বার রিট হয় এবং তা যদি গৃহীত হয়, তাহলে বিচার বিভাগের স্বাধীনতা নেই কোথায়? স্বাধীনতা না থাকলে এটা হতো না। এটাই বড় দৃষ্টান্ত। আর যারা এ সুযোগ নিচ্ছেন, তারাও এর সঙ্গে তাল মিলিয়ে বলেন, দেশে আইনের শাসন নেই।

শেষ হলো পঞ্চদশ অধিবেশন: সংসদের সংক্ষিপ্ত এ অধিবেশনের মোট কার্যদিবস ছিল পাঁচদিন। ২ মে শুরু হয় এ অধিবেশন। শুরুর আগে কার্য-উপদেষ্টা কমিটি ৯ মে পর্যন্ত অধিবেশন চালানোর সিদ্ধান্ত নিলেও একদিন আগেই তা শেষ করা হলো। গতকাল রাতে অধিবেশন সমাপ্তি সম্পর্কিত রাষ্ট্রপতির আদেশ পাঠ করার মধ্য দিয়ে অধিবেশনের ইতি টানেন স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী।