Rangpur Chamber Pic-08-08-2017-Fভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন-২০০৯ সম্পর্কিত বিষয়ে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের রংপুর বিভাগীয় কার্যালয় এর কর্মকর্তাবৃন্দের সাথে রংপুর চেম্বার পরিচালনা পর্ষদের এক মত বিনিময় সভা রংপুর চেম্বার বোর্ড রুমে অনুষ্ঠিত হয়। রংপুর চেম্বারের সভাপতি মোস্তফা সোহরাব চৌধুরী টিটুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর রংপুর বিভাগীয় কার্যালয় এর উপ-পরিচালক (উপ-সচিব ) খন্দকার মোহাম্মদ নূরুল আমিন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর রংপুর বিভাগীয় কার্যালয় এর উপ-পরিচালক (উপ-সচিব ) খন্দকার মোহাম্মদ নূরুল আমিন বলেন, “ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন, ২০০৯”-এ পণ্যে ভেজাল মেশানো অথবা নকল পণ্য উৎপাদন বা বিক্রি করলে কিংবা বিক্রির সময় ওজন বা মাপে কারচুপি করলে জরিমানার বিধান করা হয়েছে। এ আইন প্রণয়নের মাধ্যমে দেশে প্রতিদিনই বাজার তদারকি করে অপরাধ দমনের ক্ষেত্র তৈরি হয়েছে এবং ভোক্তাগণ আইনানুযায়ী তাদের অধিকার লংঘিত হলে অভিযোগ দায়েরের সুযোগ পাচ্ছেন। এ আইন প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন প্রক্রিয়ায় ভোক্তা ও ব্যবসায়ীরা সচেতন হতে শুরু করেছে এবং ভোক্তারা আইনের সুফল পেতে শুরু করেছেন। তিনি এ কার্যক্রমকে আরো গতিশীল ও ত্বরান্বিত করার জন্য চেম্বার নেতৃবৃন্দের সহযোগিতা কামনা করেন।

সভায় রংপুর চেম্বারের সভাপতি মোস্তফা সোহরাব চৌধুরী টিটু বলেন, ভোক্তা হিসেবে সবারই রয়েছে অধিকার। ভোক্তার তথা জনগণের এ স্বার্থ তথা জনস্বার্থ বিবেচনা করে এবং যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে আমাদের দেশে ২০০৯ সালের ১ এপ্রিল জাতীয় সংসদে ‘ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন-২০০৯’ পাস হয়েছে। এর আগে দীর্ঘদিন ধরে ভোক্তার অধিকার সংরক্ষণের কোনো সুনির্দিষ্ট আইন না থাকায় ভোক্তারা হয়রানির শিকার হতেন। কিন্তু এ আইন পাস হলেও এখন পর্যন্ত আমাদের দেশের অধিকাংশ মানুষ এ অধিকার সম্পর্কে সচেতন না হওয়ায় পরিপূর্ণভাবে এ আইনের সুফল পাচ্ছে না। তাই তিনি সারাদেশের চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাষ্ট্রিগুলোর মাধ্যমে বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, শিল্পপতি ও বিভিন্ন ব্যবসায়ী সমিতির নেতৃবৃন্দের সাথে সভা/সেমিনারের মাধ্যমে “ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন, ২০০৯” সম্পর্কিত বিষয়ে জনসচেতনতা সৃষ্টির আহ্বান জানান। এছাড়া এ আইনের মাধ্যমে ব্যবসায়ীরা যাতে অহেতুক হয়রানির শিকার না হয় সেদিকে নজর দেয়ার জন্য জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সদয় হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন রংপুর চেম্বারের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোজতোবা হোসেন রিপন, সহ-সভাপতি মনজুর আহমেদ আজাদ, রংপুর উইমেন চেম্বারের সহ-সভাপতি মিসেস মোর্শেদা খাতুন, রংপুর চেম্বারের পরিচালকবৃন্দের মধ্যে অজয় প্রসাদ বাবন, মোঃ শাহজাহান বাবু, দেবব্রত সরকার রঞ্জু, খেমচাঁদ সোমানী রবি, মোঃ আশরাফুল আলম আল আমিন, মোঃ রিয়াজ শহিদ, মোঃ মোতাহার হোসেন মন্ডল মওলা, মোঃ আজিজুল ইসলাম মিন্টু, মোঃ হাবিবুর রহমান রাজা, মোঃ ওবায়দুর রহমান রতন, প্রণয় বণিক এবং জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, রংপুর বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান এবং জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক আফসানা পারভীন।###