Nirbhiknews Nirbhiknews rape-570x340_0রওশন আরা পারভীন শিলা,নওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁর পোরশায় ১৬ বছরের এক কিশোরী ধর্ষনের স্বীকার হয়েছে। ধর্ষণের স্বীকার ওই কিশোরকে আলামত পরীক্ষার জন্য নওগাঁ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। এঘটনা কিশোরীর বাবা উপজেলার সোমনগর গ্রামের বাসীন্দা আব্দুল করিম বাদি হয়ে বৃহস্পতিবার চারজনকে আসামী করে থানায় গণধর্ষনের মামলা করেছেন।

মামলার আসামীরা হলেন, পোরশা উপজেলার ছাতোয়া গ্রামের রেজাবুলের ছেলে শিমুল(৩০), জেলার পতœীতলা উপজেলার বোয়ালিয়া দিঘিপাড়া গ্রামের বাবুল রশিদের ছেলে রবিউল ইসলাম (২০), ইসমাইলের ছেলে হাবিবুর রহমান(১৯) এবং মৃত কফিল উদ্দিনের ছেলে জায়েদুল ইসলাম(৩০)। এদের মধ্যে রবিউল ও হাবিুরকে আটক করা হয়েছে এবং অপর দুইজন পালাতক রয়েছে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ৪ অক্টোবর (বুধবার) বিকেলের দিকে মোবাইল ফোনে কিশোরীকে উপজেলার নোচনাহার মোড়ে ডেকে নেয় আসামীরা। এরপর তারা ওই কিশোরীকে নিয়ে আসে বিভিন্ন এলাকায় ঘোরাঘুরি করে। পরে রাতে জেলার পতœীতলা উপজেলার দিঘিপাড়া গ্রামের পাশে একটি গভির নলকুপের ছাদে মেয়েটিকে তারা রাতভর ধর্ষণ করে।

বৃহস্পতিবার ভোরে একটি ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সায় (ইজিবাইক) করে মেয়েটিকে নিয়ে তারা পোরশার শিশা বাজারের দিকে আসছিল। এসময় রাস্তায় টহলরত পোরশা থানার পুলিশ তাদের ইজিবাইক দেখে সন্দেহ হলে দাঁড়াতে বলে। তাদের সাথে কথা বলার অসঙ্গতি বুঝতে পারলে এসময় রবিউল ও হাবিুরকে আটক করা হলেও জায়েদুল ও রেজাবুল পালিয়ে যায়।

পোরশা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) মঞ্জুরুল ইসলাম বলেন, ঘটনায় কিশোরীরর বাবা বাদী হয়ে মামলা করেছে। দুইজনকে আটক করে শুক্রবার সকালে নওগাঁ জেল হাজতে পাঠানো হয়। বাকী দুইজনকে আটকের চেষ্টা চলছে।