Nirbhiknewsবন্যা কবলিত এলাকায় কর্মরত দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ঈদের ছুটি বাতিল করেছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়। বন্যায় ত্রাণ সামগ্রী সুষ্ঠুভাবে বিতরণের সুবিধার্থে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

আজ সোমবার শরীয়তপুরের জাজিরা ও নড়িয়া উপজেলায় পদ্মা নদীর ভাঙ্গনে ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণ উপলক্ষে আয়োজিত সমাবেশে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম এ কথা বলেন।

ত্রাণমন্ত্রী বলেন, বন্যাপ্লাবিত মানুষের কষ্ট লাঘবে পর্যাপ্ত ত্রাণ সামগ্রী পাঠানো হয়েছে। চাহিদা থাকলে আরও পাঠানো হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের শাসনামলে খাদ্যের জন্য কেউ কষ্ট পাবেনা। তিনি বলেন, বন্যার পানি নেমে যাওয়ার পর কৃষকদের বিনামূল্যে সার কীটনাশক ও বীজ দেয়া হবে। নদী ভাঙ্গনে ক্ষতিগ্রস্ত সকল স্থাপনা বন্যার পর পূণঃ নির্মাণ করা হবে। যতক্ষণ বন্যার পানি নেমে না যায় এবং মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি না হয়, ততক্ষণ ত্রাণ সাহার্য অব্যাহত থাকবে।

মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেন, বিএনপি নেতারা সরকারের ত্রাণ সহায়তা চোখে দেখেন না। কিভাবে ক্ষমতায় যাবেন দেশ বিদেশে থেকে তার ষড়যন্ত্র করে চলেছেন।

বন্যা কবলিত মানুষের পাশে না দাঁড়িয়ে বিএনপি নেত্রী লন্ডনে ঈদের শপিং করছেন।
তিনি বলেন, বিএনপির কোন নেতা বন্যার্ত মানুষের কাছে এসে দাঁড়ায়নি। শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী থাকলেই গরীব দুঃখী মানুষ শান্তিতে থাকে, বিপদে আপদে তাকে কাছে পায়।

শরীয়তপুরের ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক মাহবুবা আক্তারের সভাপতিত্বে ত্রাণ বিতরণ অনুষ্ঠানে সাবেক ডেপুটি স্পিকার ও সংসদ সদস্য কর্নেল (অব.) শওকত আলী, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক ও এনামুল হক শামিম, দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. শাহ কামাল প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।