Nirbhiknewsউত্তর কোরিয়া ডুবোজাহাজভিত্তিক আন্তমহাদেশীয় ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে কৃত্রিম উপগ্রহ থেকে পাওয়া সাম্প্রতিক ছবিতে আভাস পাওয়া গেছে। উত্তর কোরিয়ার সামরিক বাহিনীবিষয়ক বিশেষজ্ঞ জোসেফ বার্মুডেজ গতকাল শুক্রবার এ কথা বলেন। আজ শনিবার এএফপির এক প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়েছে।

উত্তর কোরিয়ার প্রতিরক্ষা ও গোয়েন্দা কর্মকাণ্ড সম্পর্কে বিশেষজ্ঞ জোসেফ বার্মুডেজ যুক্তরাষ্ট্রের জন হপকিনস বিশ্ববিদ্যালয়ের যুক্তরাষ্ট্র-কোরিয়া ইনস্টিটিউটের নর্থ ব্লগে ছবি পোস্ট করে বলেছেন, এই ছবি ডুবোজাহাজ থেকে উৎক্ষিপ্ত আন্তমহাদেশীয় ক্ষেপণাস্ত্র (এসএলবিএম) পরীক্ষার প্রস্তুতি বলে আভাস দিচ্ছে। তিনি বলেন, বাণিজ্যিক কৃত্রিম উপগ্রহের সাম্প্রতিক ছবি দেখে মনে হচ্ছে, উত্তর কোরিয়া সমুদ্রভিত্তিক পরমাণু অস্ত্রের উন্নয়নের গতি বাড়িয়েছে।

বার্মুডেজ বলেন, কৃত্রিম উপগ্রহের সাম্প্রতিক ছবির সঙ্গে আগের ওই পরীক্ষার প্রস্তুতির সময়কার ছবির মিল রয়েছে।

উত্তর কোরিয়ার মায়াংডো শিপইয়ার্ড ও ডুবোজাহাজের ঘাঁটিতে আন্তমহাদেশীয় ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালানো সিনপো-ক্লাস সাবমেরিনের কর্মকাণ্ডের ছবি তুলে ধরে জোসেফ বার্মুডেজ বলেন, উত্তর কোরিয়া সম্ভবত সমুদ্র থেকে নতুন করে ধারাবাহিকভাবে ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছে। সম্ভবত তারা ডুবোজাহাজ থেকে ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের পদ্ধতির উন্নত ঘটিয়েছে বা এটা পুকগুকসং-১-এর আরও উন্নত সংস্করণ। পুকগুকসং-১ হলো ডুবোজাহাজ থেকে উৎক্ষেপিত আন্তমহাদেশীয় ক্ষেপণাস্ত্র বা এসএলবিএম। ২০১৬ সালের ২৪ আগস্ট এর প্রথম সফল পরীক্ষা চালানো হয়। ওই ক্ষেপণাস্ত্র জাপানের দিকে ৫০০ কিলোমিটার পর্যন্ত উড়ে যায়।

ওই পরীক্ষা চালানোর সময় কিম জং-উন বলেন, ওই পরীক্ষা সফল হওয়ায় প্রশান্ত মহাসাগরভিত্তিক ডুবোজাহাজ থেকে যুক্তরাষ্ট্রের মূল ভূখণ্ডে আঘাত হানার সক্ষমতা তৈরি হলো।