Untitled-1-Recoveredসপ্তাহের তৃতীয় কার্যদিবস গতকাল মঙ্গলবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) লেনদেন হয়েছে ৫২৬ কোটি ২৫ লাখ টাকার, যা আগের দিনের চেয়ে ৩৭ কোটি ৩৮ লাখ টাকা বেশি। আর মূল্যসূচক বেড়েছে ১৪ পয়েন্ট। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৪৮৮ কোটি ৮৭ লাখ টাকার। আর সূচক বেড়েছিল ৬৭ পয়েন্ট। বাজারসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, পুঁজিবাজার গতিশীল করতে বাংলাদেশ ব্যাংকের সিদ্ধান্তের প্রভাব দ্বিতীয় দিনেও অব্যাহত রয়েছে। এই সিদ্ধান্তের প্রভাবে ডিএসই ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) প্রথম দিনে সূচক ও লেনদেন বেড়েছে। সেই ধারাবাহিকতায় দ্বিতীয় দিনেও সূচক ও লেনদেন বেড়েছে। তবে তা খুব সামান্যই। একই সঙ্গে দুই বাজারেই বেশির ভাগ কম্পানির শেয়ারের দামও বেড়েছে। দিনশেষে সূচক দাঁড়িয়েছে ৪৫৯৩ পয়েন্টে। ডিএস-৩০ মূল্যসূচক ১০ পয়েন্ট বেড়ে ১৭৪৪ এবং ডিএসইএস শরিয়াহ্ সূচক ৩ পয়েন্ট বেড়ে ১১০৪ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। লেনদেনে অংশ নেওয়া ৩২০টি কম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ১৫৯টির, কমেছে ১১৭টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৪৫টির। লেনদেনের ভিত্তিতে শীর্ষে রয়েছে বেক্সিমকো লিমিটেড। কম্পানিটির লেনদেন হয়েছে ২৩ কোটি ৯৫ লাখ টাকার। আর ১৯ কোটি ৭৬ লাখ টাকার শেয়ার বিক্রি করে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে বেক্সিমকো ফার্মা। ১৫ কোটি ৩৬ লাখ টাকার শেয়ার বিক্রি করে তৃতীয় স্থানে রয়েছে কেডিএস এক্সেসরিজ। অন্য শীর্ষ কম্পানিগুলো হচ্ছে আফতাব অটোস, কাশেম ড্রাইসেল, লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট, তিতাস গ্যাস, স্কয়ার ফার্মা, এমারেল্ড অয়েল ও বিএসআরএম স্টিল। মূল্যবৃদ্ধির শীর্ষে রয়েছে প্রগতি ইনস্যুরেন্স, গ্রিন ডেল্টা, এশিয়া প্যাসিফিক, বেক্সিমকো লিমিটেড, সিমটেক্স, অ্যাপোলো ইস্পাত, সেন্ট্রাল ফার্মা, সুহূদ ইন্ডাস্ট্রি, এসিআই ফর্মুলা ও ফার্স্ট ফাইন্যান্স। অন্যদিকে সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ২৫ কোটি ৮৮ লাখ টাকার আর মূল্যসূচক বেড়েছে ৯ পয়েন্ট।