Rabindranath-Pictureগতকাল বৃহস্পতিবার থেকে রাজধানীর শাহবাগের সুফিয়া কামাল জাতীয় গণগ্রন্থাগারের (কেন্দ্রীয় পাবলিক লাইব্রেরি) শওকত ওসমান স্মৃতি মিলনায়তনে শুরু হয়েছে তিন দিনের জাতীয় রবীন্দ্রসংগীত উৎসব। ৩০তম বারের মতো এ উৎসবের আয়োজন করেছে জাতীয় রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী সংস্থা।

এবারের উৎসব সাজানো হয়েছে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের উৎসব-পার্বণ, প্রেম-পূজা-প্রকৃতি-স্বদেশ পর্যায়ের গান নিয়ে। প্রথম দিনের অধিবেশন সাজানো হয় পূজা, প্রেম, প্রকৃতি ও স্বদেশ পর্যায়ের গান দিয়ে। এতে দলীয় ও একক পরিবেশনায় অংশ নেয় ১২০ জন শিল্পী। একক গান পরিবেশন করেন ৩০ জন।

সন্ধ্যায় শাহবাগের সুফিয়া কামাল জাতীয় গণগ্রন্থাগারের মুক্তাঙ্গনে উৎসবের উদ্বোধন করেন কথাশিল্পী অধ্যাপক ড. সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম। এ সময় সংগঠনের সভাপতি তপন মাহমুদ ও সাধারণ সম্পাদক সাজেদ আকবর উপস্থিত ছিলেন। গানের মূল পর্ব শুরু হয় মিলনায়তনে পর পর তিনটি সমবেত গানের মধ্য দিয়ে। এরপর আলোচনায় অংশ নেন অতিথিরা।

একক গানের পর্বে উত্তম কুমার শর্মা, লিটন কুমার বৈদ্য, মতিউর রহমান, দিলিপ কুমার দাস, নির্ঝর, মৃদুল চক্রবর্তী, আবদুল রশিদ, স্বপ্নীল সজীব, রানা সিংহা, সুচিত্রা চক্রবর্তী, শর্মিলা চক্রবর্তী, নিলোত্পল সাধ্য, অভীক দেব, ফারহানা খান খান পূরবী, আশিকুর রহমান, মেহেরা মোস্তফা নীপা, শিল্পী রায়, শর্মিষ্ঠা সরকার, নকুল চন্দ্র দাস, সুস্মিতা মন্ডল, রীতা মুসা, আঁখি হালদার. ওয়াহিদা রহমান, রাইয়ান খালিদ স্যান্ড্রা, সালমা সাবেরা মিতু প্রমুখ একক গান পরিবেশন করেন।

উৎসবের দ্বিতীয় দিন আজ শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টায় লাইব্রেরি প্রাঙ্গণ থেকে বের হবে আনন্দ শোভাযাত্রা। এর পর মূল মঞ্চে অনুষ্ঠানের সূচনা হবে পর পর দুইটি গান পরিবেশনের মধ্য দিয়ে। এই পর্বে পরিবেশন করা হবে আবৃত্তি ও গান। উৎসবের সমাপনী দিন কাল শনিবার বিকেল ৫টায় সম্মাননা দেওয়া হবে প্রখ্যাত রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী মিতা হককে।