Ahmed+Imtiaz+Bulbul_singer+Freedom Fighter_Prime minister+sheikh hasinaমুক্তিযোদ্ধা, গীতিকার, সুরকার ও সংগীত পরিচালক আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের চিকিৎসার যাবতীয় দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ বুধবার রাতে এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল তার ফেসবুকে লিখেন, ‘একটি ঘরে ৬ বছর গৃহবন্দী থাকতে থাকতে আমি আজ ভীষণ অসুস্থ। আমার হার্টে ৮টা ব্লক ধরা পড়েছে। বাইপাস সার্জারি ছাড়া চিকিৎসা সম্ভব না। এরই মাঝে কাউকে না জানিয়ে আমি ইব্রাহিম কার্ডিয়াকের সিসিউতে চারদিন ভর্তি ছিলাম। আগামী ১০ দিনের মধ্যে আমার হার্টের বাইপাস সার্জারি করাতে প্রস্তুত রয়েছি।’

‘এক সপ্তাহ আগে আব্বাকে স্বাভাবিক মেডিকেল চেকআপের জন্য একটা হাসপাতালে নিয়ে গিয়েছিলাম। সেখান চিকিৎসক জানান, দ্রুত হাসপাতালে ভর্তি হতে হবে। কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর তারা জানান, ৮টি ব্লক ধরা পড়েছে। এর মধ্যে বড় ব্লকগুলোতে রিং বসানো সম্ভব না। তারা দ্রুত ওপেন হার্ট সার্জারি করার পরামর্শ দেন।’- মুক্তিযোদ্ধা, গীতিকার, সুরকার ও সঙ্গীত পরিচালক আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের ছেলে সামির আহমেদ এ কথা জানান।

নন্দিত এই সঙ্গীত ব্যক্তিত্বের এমন স্ট্যাটাসের পর  বেশ কয়েকটি সংবাদ মাধ্যম খবর প্রকাশ করে। অনেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় শুভকামনা জানান প্রিয় মানুষটির জন্য। বিষয়টি নজরে আসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনারও। তিনি শারীরিক অসুস্থ বুলবুলের চিকিৎসার দায়িত্ব নেয়ার কথা বলেছেন।

এদিকে আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল বলেন, “আমার এনজিওগ্রাম করার পর ৮টি ব্লক ধরা পরেছে। ডা. লিয়াকত আলী আমাকে বললেন, ‘আপনি বাইপাস সার্জারি (ওপেন হার্ট সার্জারি) করে ফেলেন।’ আমি বলেছি, আমার তো বাসায় কিছু কাজ রয়েছে। আমি সেই কাজগুলো গুছিয়ে নিয়ে আসি। উনি আমাকে ১০ দিনের মধ্যে বাইপাস করে নিতে বলেছেন। আমি এখন বাইপাস করার জন্য প্রস্তুত রয়েছি।’

এর আগে ফেসবুক স্ট্যাটাসে বুলবুল লিখেন, ‘কোনো সরকারি সাহায্য বা শিল্পী, বন্ধু-বান্ধবের সাহায্য আমার দরকার নাই। আমি একাই যথেষ্ট, শুধু অপারেশনের পূর্বে ১০ সেকেন্ডের জন্য বুকের মাঝে বাংলাদেশের পতাকা ও কুরআন শরিফ রাখতে চাই। আর, তোমরা আমার জন্যে শুধু দোয়া করবে। কোনো ভয় নাই।’