Qatarঅভিবাসীদের স্থায়ী বসবাসের সুযোগ করে দিতে আইন পরিবর্তন করছে কাতার। এ আইনের ফলে দেশটিতে অবস্থানরত কিছু সংখ্যক অভিবাসীর সেখানে স্থায়ীভাবে বসবাসের সুযোগ তৈরি হচ্ছে। বিদেশী শ্রমশক্তির ওপর নির্ভরশীল উপসাগরীয় দেশগুলোর মধ্যে কাতারই প্রথম এ ধরনের কোনো পদক্ষেপ নিল। দেশটির সরকারি ওয়েব পোর্টাল হুকুমি ও রাষ্ট্রায়ত্ত সংবাদ সংস্থা কাতার নিউজ এজেন্সির (কিউএনএ) এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

কাতারে বসবাসরত অভিবাসীদের স্থায়ী নাগরিকত্ব দেয়ার বিষয়ে গৃহীত বিলের তথ্য অনুযায়ী, যেসব কাতারি নারীর স্বামী অভিবাসী তাদের সন্তানদের দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে স্থায়ী বাসিন্দার পরিচয়পত্র দেয়া হবে। একই সঙ্গে কাতার রাষ্ট্র ও জনগণের উন্নয়নে বিশেষ ভূমিকা পালনকারীরা ছাড়াও দেশটির প্রয়োজনমাফিক দক্ষ অভিবাসীদেরও এ সুবিধার আওতায় নিয়ে আসা হবে। কাতারের স্থায়ী বাসিন্দা হিসেবে পরিচয়পত্রধারী এসব অভিবাসীকে শিক্ষা ও সরকারি চিকিত্সা খাতে দেশটির স্থানীয় নাগরিকদের সমান সুযোগ-সুবিধা দেয়া হবে। এছাড়া দেশটির সরকারি চাকরি ও সামরিক বাহিনীতে নিয়োগের ক্ষেত্রেও কাতারের স্থানীয় নাগরিকদের পর তাদেরই অগ্রাধিকার দেয়া হবে।
এর বাইরেও স্থায়ী বাসিন্দার পরিচয়পত্রধারীদের কাতারে সম্পত্তি মালিকানার অধিকারও দেয়া হচ্ছে। এমনকি বাণিজ্যিক কার্যক্রম বা ব্যবসা পরিচালনার সুযোগ পেতে তাদের কাতারের কোনো স্থায়ী নাগরিককে অংশীদার বানানোরও প্রয়োজন হবে না।

অভিবাসীদের কাতারের স্থায়ী বাসিন্দা হিসেবে পরিচয়পত্র দেয়ার জন্য দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ‘পার্মানেন্ট রেসিডেন্সি আইডি গ্র্যান্টিং কমিটি’ নামে একটি নতুন কমিটি খোলা হচ্ছে। কমিটির কাজ হবে স্থায়ী বাসিন্দার পরিচয়পত্রের জন্য আবেদনগুলোকে আইনের ভিত্তিতে যাচাই-বাছাই করা।
কাতারের মিনিস্ট্রি অব ডেভেলপমেন্ট প্ল্যানিং অ্যান্ড স্ট্যাটিস্টিকস (এমডিপিএস) সূত্রে জানা গেছে, কাতারে ৮৭টি দেশের নাগরিকরা বাস করছেন। এর মধ্যে মোট জনসংখ্যার হিসাবে বাংলাদেশীরা রয়েছে চতুর্থ অবস্থানে। দেশটিতে বসবাসরত বাংলাদেশী নাগরিকের সংখ্যাই ২ লাখ ৮০ হাজার, যা দেশটির মোট জনসংখ্যার ১০ দশমিক ৮ শতাংশ। জনসংখ্যার দিক দিয়ে কাতারে প্রথম অবস্থানে রয়েছে ভারতীয় নাগরিকরা। দেশটিতে মোট ভারতীয় নাগরিকের সংখ্যা ৬ লাখ ৫০ হাজার, যা কাতারের মোট জনসংখ্যার ২৫ শতাংশ। এর পরই রয়েছেন নেপালের নাগরিকরা। কাতারে নেপালি নাগরিক রয়েছে ৩ লাখ ৫০ হাজার, যা কাতারের মোট জনসংখ্যার ১৩ দশমিক ৫০ শতাংশ। অন্যদিকে মোট জনসংখ্যার ১২ দশমিক ১ শতাংশ হচ্ছে কাতারের স্থানীয় নাগরিক। যার সংখ্যা মাত্র ৩ লাখ ১৩ হাজার।

জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছর এখন পর্যন্ত বাংলাদেশ থেকে কাতারে গেছেন ৫১ হাজার ৮৪৯ জন শ্রমিক। অন্যদিকে গত বছর বাংলাদেশ থেকে বিদেশগামী শ্রমিকদের মধ্যে ২২ শতাংশেরই গন্তব্য ছিল কাতার। ২০১৬ সালে বিএমইটি থেকে ছাড়পত্র নিয়ে বৈধভাবে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পাড়ি দিয়েছেন মোট ৭ লাখ ৫৭ হাজার ৭৩১ বাংলাদেশী। এর মধ্যে শুধু কাতারেই গেছেন ১ লাখ ২০ হাজার ৩৮২ জন। এছাড়া ২০১৫ সালে বাংলাদেশ থেকে কাতারে শ্রমিক পাঠানো হয়েছে মোট ১ লাখ ২৩ হাজার ৯৬৫ জন।