আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের বিরুদ্ধে ফেসবুকে57-ICT Law অপপ্রচার চালানোয় ৫৭ ধারার মামলায় এক আওয়ামী লীগ নেতাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তাঁর নাম মোখলেছুর রহমান লিটন। তিনি কসবা উপজেলার কুটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

গতকাল বুধবার কুমিল্লা জেলা শহর থেকে লিটনকে আটক করা হয়। কসবা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুজ্জামান বলেন, ‘সন্দেহভাজন হিসেবে তাঁকে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করছি। ৫৭ ধারার যে বিষয়গুলো আছে, সেগুলোর সঙ্গে তাঁর সংশ্লিষ্টতা আছে কি না বা তাঁর মোবাইল থেকে কিছু পোস্ট করা হয়েছে কি না আমরা তদন্ত করে দেখছি।’

উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক রুহুল আমীন ভূইয়া বকুল বলেন, কয়েক দিন আগে পুলিশ সদর দপ্তর থেকে অনুমতি নিয়ে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে সাতটি মামলা হয়েছিল।

সম্প্রতি আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক ও তাঁর ব্যক্তিগত সহকারী রাশেদুল কায়ছার ভূইয়ার বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার চালানোর অভিযোগ এনে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে সাতটি মামলা দায়ের করা হয়। কসবা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মনিরুজ্জামান জানান, পুলিশ সদর দপ্তর সব কটি মামলারই তদন্তের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে এ-সংক্রান্ত মামলার বাদী ও কুটা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সাইদুর রহমান স্বপন বলেন, মোখলেছুর রহমান লিটন ও শ্যামল কুমার রায়কে আসামি করে এপ্রিল মাসের শেষ দিকে তিনি মামলাটি করেছিলেন। আইনমন্ত্রী ও তাঁর ব্যক্তিগত সহকারীর বিরুদ্ধে ফেসবুকে ভুয়া আইডি থেকে বিভ্রান্তিকর তথ্য দিয়ে অপপ্রচার চালানোর অভিযোগে এ মামলা তিনি করেন।

কসবা সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) আবদুল করিম জানিয়েছিলেন, মামলাগুলো পুলিশ সদর দপ্তর থেকে অনুমোদন দেওয়ার পর তাঁরা তদন্ত কার্যক্রম শুরু করেন।